logo corona

সাবধান, সতর্ক, সচেতন এবং সুস্থ একটি আহ্বান
মন্দাক্রান্তা সেন

সারা পৃথিবীতে ত্রাস সৃষ্টি করেছে একটি জিন মাত্র ।উজাড় হচ্ছে একের পর এক দেশ । এবং তারা বেশির ভাগ প্রথম বিশ্বের । সেখানে ভারত তো কোন ছার । এই ভাইরাস কোভিড ১৯- এর সৃষ্টি চিনে । তাদের ল্যাবরটেরি থেকে লিক করে এই ভাইরাস চিনে ও সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়েছে, কিন্তু উহান অঞ্চলের বাইরে তা তেমন দাঁত ফোটাতে পারেনি । এর কারণ চিন সত্যিকারের একটি শিক্ষিত দেশ । আপনি বলবেন অ্যামেরিকা বিটেন ইতালি ফ্রান্স স্পেন কি শিক্ষিত দেশ নয় ? নিশ্চয় শিক্ষিত, কিন্তু ডিসিপ্লিন্ড নয় । চিনেও তো ফের ফিরে আসছে করোনা । তা বলে আমাদের আহ্লাদের তো কিছু নেই । প্রয়োজন সতর্কতা বাড়ানো, সক্রিয়তা বাড়ানো । আমাদের দেশে শিক্ষা তো নেইই, ডিসিপ্লিন আরও নেই । লকডাউন করে সংক্রমণ ঠেকানো এখানে এখনও অসম্ভব । জনতা কারফিউ-র মতো পদক্ষেপ, তা যতই অর্থহীন হোক, থালা বাজানো আর হাততালি দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হোক, লোকে জনতা রাস্তায় নেমে পড়ল । তারা এমনকি রাস্তায় নেমে নাচানাচিও করল । ঠিক যেন করোনা মাঈ কি জ্যায় । আসছে বছর আবার হবে । তারপর শক্তি প্রদর্শনে দিয়া জ্বালানো । কী, না শক্তিপ্রদর্শন । বাজি পোড়ানো । এসব কি শিক্ষিত দেশের উদাহরণ !

আমাদের দেশে লকডাউন আদৌ হচ্ছে না । কমপ্লিট লকডাউন মানে কমপ্লিট লকডাউন । কে মানছে ? বাজারে গাদাগাদি ভিড়, দলে দলে নমাজ পড়া ---এগুলো কি লকডাউনের নমুনা ? কিন্তু কী করেই বা এই লকডাউন চাইব আমরা, যখন দিন আনি দিন খাই মানুষগুলোর পেটে ভাতে টান ! পরিযায়ী শ্রমিকরা পায়ে হেঁটে দূর দূরাঞ্চল থেকে ঘরে ফিরতে চেয়েও ফিরতে পারছে না ! হ্যাঁ, সহানুভূতিশীল মানুষ তাদের খাবার দিচ্ছে, ঘরে ঘরে চাল আলু বিলি করা হচ্ছে । আমরা বিভিন্ন ফান্ডে (অবশ্যই বিশ্বাসযোগ্য) যথাসাধ্য দিচ্ছি ৷ কিন্তু এত বড় দেশে এত ভুখা পেটের খাবার জোটানাের সাধ্য কারও নেই ।

অত্যাবশ্যকীয় পেশার মানুষজন যেমন স্বাস্থ্যকর্মী পুলিশ সাফাইকর্মী দমকল গণমাধ্যম মুদি- দোকানীকে এই লকডাউনে ছাড় দেওয়া হয়েছে ৷ ছাড় পেয়ে তাঁরা
কি আনন্দিত ? না কি আতঙ্কিত ? স্বাস্থ্যকর্মীদের উপযুক্ত সুরক্ষা নেই, মেডিকেল কিট নেই, তাঁরা ভবিতব্যের হাতে তাঁদের ভবিষ্যতকে ছেড়ে দিয়েছেন ৷ মরলে যেন কত লক্ষ টাকার বিমা ? আর বাঁচার বেলায় ঢু-ঢু ৷ এদিকে একেক দিন একেক রকম ওষুধের আবিষ্কার । সে সব নিয়ে উত্তেজিত আলোচনা ৷ দেশে নেই কিস্যু, হতচ্ছাড়া ট্রাম্পের ভয়ে জুজু হয়ে হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন চলে যাচ্ছে মার্কিন দেশে ৷ মেডিক্যাল কিট চলে যাচ্ছে সার্বিয়ায় ৷ কেন ! এদিকে আরো নিদারুণ খবর, দেশের এই চরম দুঃসময়ে মোদী কোটি কোটি টন অস্ত্র কিনছেন ইজরায়েল থেকে । এও সম্ভব !

বলছিলাম, এই দেশে কমপ্লিট লকডাউন অসম্ভব ৷ শিক্ষিত মধ্যবিত্তরাও (উচ্চবিত্তদের কথা বাহুল্য) লকডাউনে দিব্যি একটা ছুটি কাটাচ্ছেন ৷ বেশি বেশি বাজার, ভালােমন্দ রান্না, ফেসবুকে খাবারের পোস্ট ৷ এই আনন্দের গােড়া কাটতে হবে । মানুষের মনে ভয় ঢোকাতে হবে । একথা বললেই পুলিশ আমায় গ্রেপতার করবে আতঙ্ক ছড়ানাের দায়ে, কিন্তু তবু আমি বলব, মমতা দেবী এই বেলা মৃতের প্রকৃত সংখ্যা প্রকাশ করুন । তাহলেই মানুষ ভয় পাবে । তাহলেই মানুষ পরিস্থিতি সম্পর্কে অবগত হবে ।তখনই,  একমাত্র তখনই কমপ্লিট লকডাউন সম্ভব । 

সবাই প্রথম প্রথম মুখ্যমন্ত্রীর তৎপরতা দেখে আশ্বস্ত না হোক, অন্তত আশাবাদী হয়েছিলেন ৷ তাদের মধ্যে আমিও ছিলাম ৷ কিন্তু এর পিছনে কী যে খেলা সেটা বুঝতে দেরি হয়নি I সে কথা এখন থাক ৷ সমস্ত ফ্যাসিবাদী ও আধা-ফ্যাসিবাদী শাসক এমনটাই করে থাকে I মানুষকে মুগ্ধ করে রাখে ৷ জাতীয়তাবাদী আরক খাইয়ে রাখে ৷ তার ভণ্ডামির আর শেষ নেই । প্রধানমন্ত্রী জাতির প্রতি বড় বড় ভাষণ রাখেন ৷ আহা রে, সাধারণ মানুষের গরিব মানুষের জন্য কী বার্তাই না পাঠালেন ---আমি ক্ষমাপ্রার্থী । এটা একজন রাষ্ট্রপ্রধানের বার্তা ! আর আমাদের মুখ্যমন্ত্রী রাস্তায় গােলচক্কর আঁকেন ৷ এসবে আমিও গলে গেছিলাম ৷ তারপর তাঁর মোটিভটা বুঝতে পেরে আর এসব ভাল্লাগেনি ৷ করোনায় মারা গেলেও ডেথ সার্টিফিকেটে অন্য কথা লেখা হচ্ছে, করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা হু হু করে বাড়ছে, বাড়ছে করোনায় মৃত্যুর সংখ্যা, সব চেপে যাওয়া হচ্ছে I চেপে যাওয়া হচ্ছে আমরা যে স্টেজ থ্রি-তে ঢুকে পড়েছি, কমিউনিটি স্প্রেড বাড়ছে, তাঁর কি উচিত ছিল না, এই সত্যিকারের জাতীয় (প্রকৃতপক্ষে আন্তর্জাতিক) দুর্যোগে আরও দায়িত্বশীল হওয়া ?মানুষকে সত্যিকারের চিত্রটা জানানো ? মানুষকে আরো আরো সাবধান করা সতর্ক করা সচেতন করা ? এই লকডাউন ঘরে বসে মজা করা, বোর হওয়া বা ল্যাদ খাওয়ার নয় । আমার পরিবারের পরিজনের কথা ভেবেই আমাকে বারবার হাত ধুতে হবে, হাঁচি পেলে কনুই দিয়ে নাক ঢাকতে হবে ইত্যাদি আরো সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে । রাস্তায় যে থুতু ফেলা মানা, সেটা এই দেশে ক’জন মানছেন ? গুটখা খাওয়া কি লকডাউন হলো ? নাঃ, হয়নি তো । মুখ্যমন্ত্রী বিড়ি শিল্পকে লকডাউনের আওতায় আনলেন না ।এই সিদ্ধান্ত দুষ্টু দামাল বাচ্চা ছেলেদের জন্য নয় তো ?

এই লেখার জন্য আমাকে হয়তো গ্রেপতার হতে হবে । হয়তো অন্যভাবে আক্রান্তও হতে পারি । হে রাষ্ট্র হে শাসক, আমার হিসেব আমার বন্ধুরা নেবে ।

আর যারা করোনায় প্রাণ হারাচ্ছে, তার হিসেব নেব আমরা ।

 

Comments powered by CComment