logo corona

বন্ধ তালার ভিতর 
লক্ষ্মীকান্ত মণ্ডল 

তালাবন্ধ। আপাতত দিনক্ষণ ঠিক হয়েছে  একটা তারিখ পর্যন্ত ।  কিন্তু তারপর ?  খুলে যাবে কি - মুক্ত হবে কি একটা অধিক জনসংখ্যার দেশ স্বাভাবিক গতি -আবার স্বাভাবিক হবে কি ছটপটে ঘিঞ্জি একটা দেশ  -  যার নাম ভারত ।   আশঙ্কা থেকেই যাচ্ছে । তবে খুলবে   -  সেই আসায় এখন চুপচাপ ঘরবন্দী শতকরা সত্তর শতাংশ মানুষ ।  স্রেফ চুপচাপ । আতঙ্ক আর আশঙ্কা ।  এই দুমাস আগে যারা মন্দিরে মসজিদে গির্জায় প্রার্থনা জানাতো,  হত্যে দিত  , তারা এখন কোন দেবতার কাছেই যাচ্ছেন না । বুঝে গেছেন সকলে - দেবতা রক্ষা করতে পারেন না আর - তালা খোলা তো দূরের কথা ,  যখন একটা ভাইরাস কুরেকুরে খাচ্ছে মানুষের ফুসফুস , কুরে খাচ্ছে মানুষের নিশ্বাস তখন দেবতাদের কিচ্ছু করার থাকে না । তারাও বন্দী তালার ভেতর  । নিজের রক্ষার জন্য নিজের চেষ্টাই শ্রেষ্ঠ পথ । অবশ্য যদি  রক্ষা করার মানসিকতা থাকে । কেননা   মানুষই মানুষকে রক্ষা করতে পারে । একটা সভ্যতাকে মানুষই ধ্বংসের মুখ থেকে বাঁচতে পারে , তাই মানুষই সভ্যতার প্রতীক । 
 
তবে ? এই তবে থেকেই বুঝতে পারছি এটা কেবল বাহ্যিক । গালভরা সুত্রের মতো । প্রয়োগ করবে কে ? পরিস্থিতি এমনই  মানুষকে রক্ষা করার মানসিকতাও রাজনৈতিক। একটা ভাইরাস আমাদের  দাঁড় করিয়ে দিয়েছে আরও কত ভাইরাসের মুখোমুখি ।  ১. দারিদ্র্য  ২. শিক্ষার প্রতি বিরূপ মানসিকতা  ৩. অনুন্নত স্বাস্থ্য পরিসেবা  ৪. প্রশাসকের গাফিলতি। 
এছাড়াও আরও কত ভাইরাস জেগে ওঠছে এই সময় । আমাদের এখন যা প্রয়োজন তা হল পরীক্ষা করা , পরীক্ষায় বসা । তা আর হচ্ছে কই ?  ন' কোটি মানুষের বাস এই পশ্চিম বঙ্গে  - প্রতিদিন টেস্ট হচ্ছে মাত্র সীমিত সংখ্যক । সরকার বলছেন পরিসেবা নেই । সরকার স্বীকার করছেন নাকি লুকোতে চাইছেন ?  সে কারনে বুঝতে পারছি না কার সংক্রমণ আছে । আমার পাশের মানুষটি সংক্রমিত নয় তো - কিংবা আমি । যে কারনে আমি মৃত্যুর দিকে ঠেলে দিতে আমার পরিবারকে,  আমার প্রতিবেশি  পাড়া কে,  আমার গ্রামকে । তার দায় অবশ্যই প্রশাসনকে দিতে পারি   - একক হিসেবে আমিও ,  কেন না আমিও তো এই বিপন্নতার অংশীদার । 
 
কী আশ্চর্য দেখুন -আমরা একজনও চাইছি না আক্রমণের আশঙ্কা  দীর্ঘস্থায়ী হোক - সকলেই চাইছি দ্রুত নিরাময় - আবার মুক্ত হাওয়া,  মুক্ত আলো - সরকার থেকে শুরু করে সাধারণ মানুষ । প্রশাসক থেকে নিম্নবিত্ত । বাধাটা কোথায় ? 
 
কিন্তু পারছি কই?  এই যে বাকি তিরিশ শতাংশ ? তারা বলে বেড়াচ্ছে  - দূউউর আমাদের এখানে ওসব ভাইরাস টাইরাস আসবে না ।  তারা এখনও আড্ডা মারছে বেঞ্চি তৈরি করে ।  সেখানে বসে বিড়ি টানছে  - আর পাড়ার পিসি দিদি বৌদিদের সাথে মস্করা করছে ।  যদিওবা হঠাৎ করে সিভিএফ টহল মারতে আসে - তবে নিমেষেই হাওয়া । তারপর যথারীতি একই ।  এ রকম আরও কত ছবি । বেশ আছে  - বিনে পয়সার  রেশন, ধনজন যোজনার পাঁচ'শ টাকা আর উজালার গ্যাস নিয়ে । রেশন  তোলার জন্য ভিড় জমাচ্ছে আর সেই ফাঁকে ডিলারেরা চুরি করে চলছে সেই রেশনের চাল। শোকজ হচ্ছেন বিভাগীয় পদস্থ প্রতিনিধি । কিন্তু সবই প্রহসন । কে বেশি ঠিক? কে বেশি সংবেদনশীল ? কে বেশি নৈতিক ?  এমনকি কার বেশি দুঃখ ?  এসবের ভবিষ্যৎ কী ?  ওই নিয়ে আলাপ আলোচনা আর স্মার্ট ফোনের যতসব মিমিক্রি বুঝতেই পারছে না সংক্রমণ বাড়লে  কি ভয়ঙ্কর পরিনাম হতে পারে । 
 
তারপর আছে লঘু গুরু । কে আর কাকে পাত্তা দেয় ।  ভোট আছে - গনতন্ত্রের নামে প্রকট হচ্ছে সুবিধাবাদ । 
 
এত সবের মাঝেও সরকার চাইছেন সংক্রমণ ওভারকাম করতে । কী রাজ্য সরকার কী কেন্দ্র সরকার ।  প্রশাসক হাতে লাঠির বদলে তুলে নিয়েছেন গান । সচেতনতার জন্য গান গাইছেন তারা ।  আমাদের নিরাময় দিতে চান । লড়াই করছি আমরাও । এ লড়াই ঘরে বসে থাকার লড়াই । এ লড়াই আমাদের কাছে তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ । শত্রু কে আমরা জানি না ।  তার হাতিয়ারও অদৃশ্য । তবু লড়াইয়ে জিততে চাই । জিততে চাই সামজিক দূরত্ব বজায় রেখেই । 
 
আমি দেখতে পাচ্ছি  অতীতের সেই সাদা কালো ছবি  - মন্বন্তরের ছবি ;  মা রূগ্ন সন্তানের মুখে তুলে দিচ্ছে শুকনো স্তন । তাতে ছিটেফোঁটাও রস নেই - সন্তানের ক্ষুধার্ত কান্না নিয়েই শূন্যে এনামেল বাটি তুলে ধরেছে হাড় সর্বস্ব মা । আসতে চলছে কি সেই সময় ?  তার সাথে দেখছি ক্রমশ  অসহিষ্ণুতা  আর অসন্তোষ । হবে নাই বা কেন ? মতপার্থক্য, মূল্যবোধে'র পার্থক্য, সব থেকে বড় কথা ব্যক্তি বিশেষের  পার্থক্য ।  এর মাঝেই বাড়ছে ক্ষুধার পরিধি । চলছে  অর্থহীন তুলনার মাপকাঠি ৷ 
 
এখনও নিজেরা ভাত আর সব্জি খাই । বেঁচে থাকলে হয়তো কিছুদিন পরে শুধু ভাতই পাব।  খেতে খেতে  বারুই পাড়ার বুড়িটার কথা বলি  - যে দু বেলা মুড়ি খেয়েছে গত তিন দিন । শুকনো মুড়ি । জল ঢালে নি  - যদি নেতিয়ে কমে যায় মুড়ি !  তার করোনার ভয় নেই,  আছে পেট খালি হওয়ার আতঙ্ক । 
তবুও প্রতিদিন রাতে শোয়ার আগে এই ভেবে ঘুম আসে যে - আগামী কাল ভোরেই পেয়ে যাব ভাইরাস মুক্তির প্রতিষেধক । সমস্বরে গেয়ে উঠব - আমরাই পেরেছি , জয করছি সমস্ত ভাইরাসের সংক্রমণ । আবারও প্রমাণ হয়ে যাবে  - মানুষ পারে না এমন কিছুই নেই ।

Comments powered by CComment