iswarchandra vidyasagar

Mohool Potrika
Login Here  Login::Register

উৎসব সংখ্যা : ২০১৯ : গদ্য

উৎসব সংখ্যা : ২০১৯ : গদ্য

 

প্রকৃতির কত রূপ,কত গন্ধ। ঋতু ছুঁয়ে থাকে সেই সৌন্দর্যের রূপভেদ কে। মানুষ তো প্রকৃতিরই অংশ। তাই যাদের অনুভব করার ক্ষমতা বেশি, প্রকৃতির  রূপ পরিবর্তনে বদলে যায় তাদেরও মনের গতিপ্রকৃতি। অকারণ আনন্দে কখনো কখনো মন ভরে ওঠে প্রকৃতিরই আহ্বানে। আবার  অযথাই মন কেমনের সুর বেজে ওঠে নিশ্চুপে। এক একটা রোদ এসে যেন বলে যায় ‘চেনো আমায়?’এ এক নিঃশব্দ আকুতি। কত অচেনা এসে মিশে যায় এখানে। কত গভীর সেই হাহাকার।

আমিও তো পথ হাঁটি সেই চেনা-অচেনার ভিড়ে। কতদিন হল এসেছি পৃথিবীতে! আরও কত পথ হেঁটে যাব! সেই চেনা রোদের স্পর্শ গায়ে জড়ালে মনে পড়ে যায়,বাড়ির পেছনে মাটির দাওয়া। বকুল ফুল ছেয়ে আছে গাছে। তলার বাসি ফুল,নিস্তব্ধ দুপুর। মাটির পুতুল,খেলনাবাটি-রান্নাঘরে তুমুল ব্যস্ততা। রোদ পড়ে এলে খেলা শেষ হয়,আর রোদের বয়স...



 

খোলাপিঠ। একটা অনন্ত  ক্যানভাস। একগুঁয়ে। এখন সে কোন রং ছোঁবেনা , এখন ব্লকেজ। অথচ সে ই অজানিত ভাবে নির্জন সেলফি ঝুলিয়ে দিচ্ছে দেওয়ালে ,করিডোরে। হিলস্টেশনে মেঘ ঝুলে আছে। বৃষ্টি নামছে না। এ দৃশ্যের কাছে শিল্পী বন্দী। দশ আঙুলে এতো রং, মননে ক্ষুধা ! তবুও স্থবির ক্যানভাস তবুও শিল্পী! একটা স্থিরচিত্র। 

 
রিঙ্কু ও রিঙ্কি। একটা স্বরবর্ণের ব্যবধান। একটা ছোট্ট টাচ ,গতিবদল। ক্যানভাস ও শিল্পী ,দুজনেই নতুন, উজ্জ্বল ও ভীরু। ক্যাম্পাস অমোঘ, ক্যাম্পাস ই সম্পর্ক। দুজনের জানশোনা হয়। ছেলেটির আঙুলের রং মেয়েটির পিঠে এসে লাগে। স্বরবর্ণ জুড়ে জুড়ে একটি বর্ণমালা লেখা হয়।কালারফুল কাব্য। 
 
...

 

জানিস ,অনেকদিন লেখা হয়ে ওঠেনি তোকে। সময়ের প্রান্ত সীমায় আবর্তিত হতে হতে কবেই পিষে গিয়েছি খেয়াল করিনি। সেদিন হঠাৎ একটা কাজের সূত্রে তোর কথা মনে পড়ল। বলব না আছিস কেমন। আগের মতোই চেতনার অলিন্দে তোকে দেখে নিচ্ছি , হয়তো বা পড়েও । তুই সেদিন বলেছিলি পাশাপাশি ছন্দবদ্ধ পায়ে নদীও উতল হয়।...

 

বাবা চেয়েছিলেন দোতলার পশ্চিমের ঘরটির উত্তর দিকে কোনও জানলা থাকবে না। থাকবো আমি। ওদিকে ঝোপঝাড় আর সেই পুকুর! তাই বন্ধ থাকবে ওদিক। তার চেয়ে পশ্চিমদিকে দুটো বড় বড় জানলা হয়ে যাক।
আমি মানতে পারলাম না। দক্ষিণ এর জানলা রোমান্টিক, শুনেছি পড়েছি।...

 

এই যে বিকেল নেমে এল কাঁশাইপাড়ে। ওই যে ওপারের ঝোপে সন্ধ্যার আয়োজন শুরু হল। শেষবারের মতো জাল টেনে গুছিয়ে রাখল অনন্ত মালো। দু একটি সাইকেল চলে গেল ঘরের দিকে। এই যে জল থেকে ধীরে ধীরে মিলিয়ে যাচ্ছে বাঁশের সাঁকোর প্রতিচ্ছবি–আমি এসবের মধ্যে কবেকার তোরঙ্গে রাখা জামাকাপড়ের ভাঁজের ন্যাপথ্যালিনের...

 

মনকেমনের কথা বললেই আমার গৌতম চট্টোপাধ্যায়ের কথা মনে পড়ে। ‘মহীনের ঘোড়াগুলি’-র গৌতম চট্টোপাধ্যায়। যে গান ৮০-র দশকে লোকে গ্রহণই করেনি সেই ‘মন আমার কেমন কেমন করে ও বধূরে’ ২০০০ পরবর্তী প্রজন্ম আপন করে নিল। আসলে ওই ‘মনকেমন’ শব্দটাই বড় আকর্ষণীয়।

...



ডায়ারি হাতে পেতে পেতে ক্লাস সেভেন। তার আগের দুই ক্লাস লাইনটানা নোটবুক। তখন অনেক কিছু ব্যক্তিগত। তখন অনেক কিছু সবাইকে বলা যাচ্ছে না। তখন সেরকম প্রাণের কাছাকাছি কেউ নেই তো। কেউ নেই বড় হওয়ার বিস্ময় কষ্ট আঘাত অপমান শেয়ার করার। তাই লিখে ফেলা। স্বগতকথন। মিশতে পারি কই তেমনভাবে। ভালো লাগে না তো অহেতুক...

Page 1 of 3

মহুল ওয়েব প্রকাশিত বিভিন্ন সংখ্যা



করোনা Diary



আমাদের কথা

আমাদের শরীরে লেপটে আছে আদিগন্ত কবিতা কলঙ্ক । অনেকটা প্রেমের মতো । কাঁপতে কাঁপতে একদিন সে প্রেরণা হয়ে যায়। রহস্যময় আমাদের অক্ষর ঐতিহ্য। নির্মাণেই তার মুক্তি। আত্মার স্বাদ...

কিছুই তো নয় ওহে, মাঝে মাঝে লালমাটি...মাঝে মাঝে নিয়নের আলো স্তম্ভিত করে রাখে আখরের আয়োজনগুলি । এদের যেকোনও নামে ডাকা যেতে পারে । আজ না হয় ডাকলে মহুল...মহুল...

ছাপা আর ওয়েবের মাঝে ক্লিক বসে আছে। আঙুলে ছোঁয়াও তুমি কবিতার ঘ্রাণ...

 

 

কবিতা, গল্প, কবিতা বিষয়ক গদ্য পাঠাতে পারেন ইউনিকোডে ওয়ার্ড বা টেক্সট ফর্মাটে মেল করুন [email protected] ।

বিশেষ দ্রষ্টব্যঃ- www.mohool.in এ প্রকাশিত লেখার বিষয়বস্তু ও মন্তব্যের ব্যাপারে সম্পাদক দায়ী নয় ।